লাকসাম-মনোহরগঞ্জে ভুয়া সাংবাদিকের দৌরাত্ম্য! হয়রানির শিকার বিভিন্ন মহল: প্রশাসনের হস্তক্ষেপ জরুরী

LaksamDotKom
By LaksamDotKom অক্টোবর ২৬, ২০১৩ ২৩:৫২

মশিউর রহমান সেলিম : কুমিল্লার লাকসাম ও মনোহরগঞ্জ উপজেলার সর্বত্র ভুয়া সাংবাদিকদের দৌরাত্ম্য ব্যাপকহারে বৃদ্ধি পেয়েছে। টাকার বিনিময়ে কুখ্যাত-অখ্যাত পত্রিকার পরিচয়পত্র ও কাঁধে ক্যামেরা ঝুলিয়ে সাংবাদিক পরিচয়ে বিভিন্ন মহলে ধান্দাবাজি ও প্রতারণার মাধ্যমে ভয়ভীতি দেখিয়ে হয়রানী করে অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছেন। জানা যায়, লাকসাম-মনোহরগঞ্জ অঞ্চলের সাংবাদিকদের মধ্যে অনেকেই পত্রিকার হকার হওয়ার যোগ্যতা না থাকলেও বড় বড় সাংবাদিক বনে গেছেন! নিজেরা সংবাদ লেখা বা তৈরি করতে না পারলেও অন্যের লেখা কিংবা পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদ চুরি করে নিজের লেখা বলে চালিয়ে বিভিন্ন মহলের সাথে প্রতারণা করছেন। স্থানীয়ভাবে বেশ ক’টি পত্রিকা প্রকাশিত হলেও অনেক পত্রিকার পরিচয়ে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে ৫/৬ জনের উপস্থিতি সিনিয়র ও প্রকৃত সাংবাদিকদের বিব্রতকর অবস্থায় পড়তে হয়।

স্থানীয় প্রশাসন সূত্র জানায়, ভুয়া সাংবাদিকদের একটি চক্র উপজেলা ও থানাসহ প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তরে তদ্বির বাণিজ্যের সাথে জড়িত কিংবা কোন রাজনৈতিক নেতার তোষামোদকারী ও চাটুকার হিসেবে বিভিন্ন রাজনৈতিক এজেন্ডা বাস্তবায়নে ব্যস্ত রয়েছেন। উপজেলা দু’টির বিভিন্ন স্থানে বেশিরভাগ সভা-সমাবেশেই অর্ধশতাধিক সাংবাদিকের উপস্থিতি লক্ষ্য করা যায়। এদের বেশিরভাগই ভুয়া। কিন্তু সাংবাদিক পরিচয় দানকারী এসব ব্যক্তিদের কোন সংবাদ কোন্ পত্রিকায় ছাপা হবে বা হচ্ছে কি-না? তার কোন জবাব কেউ দিতে পারছে না। আবার অনেকে বিভিন্ন নম্বরবিহীন যানবাহনের প্লেটে ‘প্রেস’, ‘সংবাদপত্র’, ‘সাংবাদিক’ লিখে বিভিন্ন স্থানে দাবড়ে বেড়াচ্ছে।

জনৈক রাজনৈতিক নেতা জানান, দলীয় অনেক লোক নিজেদের অপকর্ম ঢাকতে এ সাংবাদিকতা পেশায় নাম লিখিয়েছেন। অনেকে আবার স্থানীয় প্রশাসনের বহু গোপন তথ্য এনে দলীয় নেতাদের কাছে দেবতা সাজছেন। অন্যদিকে, বিভিন্ন রাজনৈতিক মহলে গিয়ে অন্য সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে কুৎসা রটিয়ে নিজেদেরকে অখ্যাত থেকে বিখ্যাত ব্যক্তি হিসেবে উপস্থাপিত করে ধান্ধাবাজির টিকেট নিয়ে নিচ্ছেন। অনেকে অন্যের প্রেরীত সংবাদ প্রকাশিত হওয়ার পর বিভিন্ন পত্রিকা সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্টদের টেবিলে টেবিলে পৌঁছে দিয়ে হাতিয়ে নিচ্ছেন নগদ অর্থ। এ ধরনের বখশিশ ও বোনাসের ব্যবসা এ অঞ্চলের মিডিয়া জগতের বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে।

সিনিয়র সাংবাদিকরা জানান, লাকসাম প্রেসক্লাব, সাংবাদিক সমিতি ও রিপোর্টার ক্লাব নামে সিনিয়র সাংবাদিকদের সংগঠন থাকলেও এ বাইরেও রয়েছে আরো অর্ধশতাধিক সাংবাদিক। অবৈধ ও ভুয়া সাংবাদিকদের অপতৎপরতার ফলে অনেক সিনিয়র সাংবাদিক এ মহৎ পেশা ছেড়ে দেয়ার চিন্তা-ভাবনা করছেন। অনেকেই আবার নিজেদের গুটিয়ে রেখেছেন। এলাকার জনমনে নানা প্রশ্ন- সাংবাদিকদের অনেকেই ব্যবসায়ী ও চাকরিজীবী। কিন্তু যাদের একেবারেই কোনো ব্যবসা কিংবা চাকরি নেই, পত্রিকা কর্তৃপক্ষ থেকেও কোন সুযোগ-সুবিধা থাকে না, ওই সকল কথিত সাংবাদিকরা পরিবার-পরিজন নিয়ে সংসার পেতে কিভাবে শহরে বাসা ভাড়া নিয়ে শান-শওকতে থাকেন! এ ব্যাপারে প্রশাসনিক খোঁজ-খবর নেয়া অত্যাবশ্যক বলে অনেকের অভিমত। রাজনৈতিক ব্যক্তিদের অভিমত হচ্ছে- লাকসাম ও মনোহরগঞ্জ উপজেলায় অনেক প্রকৃত ও সিনিয়র সাংবাদিক রয়েছেন। কিন্তু তথাকথিত সাংবাদিকদের ব্যাপারে সাংবাদিক সংগঠন নেতারা অনেকটা নিশ্চুপ। সাংবাদিকদের দেশ-জাতির বিবেক হিসেবে গণ্য করা হলেও বর্তমানে এ অঞ্চলের সৎ সাংবাদিকতা পেশার নিজস্ব ঐতিহ্য হারানোর উপক্রম। এ ব্যাপারে রাষ্ট্রীয়ভাবে নীতিমালা থাকলেও প্রয়োগ নেই।

স্থানীয় ব্যবসায়ী সূত্র জানান, কতিপয় নবীন ও ভুয়া সাংবাদিক পরিচয়দানকারী ব্যক্তিদের অপতৎপরতার কাছে স্থানীয় প্রকৃত সাংবাদিকদের অনেকেই মান-সম্মান বাঁচাতে হার মানতে বাধ্য হচ্ছেন। কারণ এদের রয়েছে- রাজনৈতিক পেশিশক্তি, প্রশাসনের ছত্রছায়াসহ অবৈধ পথে আয়কৃত কালো টাকার দাপট, পাশাপাশি রয়েছে স্থানীয় প্রভাব ও দলীয় বিত্তশালী লোকজনের কৃপাদৃষ্টি। দু’ঈদসহ বিভিন্ন জাতীয় অনুষ্ঠানে বিজ্ঞাপনের জন্য ভীড় এবং বোনাস-বখশিশ পাওয়ার আশায় দৌঁড়-ঝাঁপ তো আছেই। এতে অনেকেই ওইসব অপতৎপরতাকে ঘৃণার চোখে দেখছেন। এতে প্রকৃত ও স্বনামধন্য সাংবাদিকদের অনেক কটুকথা শুনতে হচ্ছে। এর কারণ হিসেবে সাংবাদিক সংগঠনগুলোর নেতৃত্বের দুর্বলতাকেই দায়ী করছেন স্থানীয় সুশিল সমাজের লোকজন। তথাকথিত সাংবাদিকদের অনেকেই আবার অন্ধগলির পথচারী! এ মহৎ পেশাকে পূঁজি করে প্রতিনিয়ত সংবাদ ও বিজ্ঞাপনের নামে চাঁদাবাজি করে চলেছে। মূলতঃ এ সবের পেছনে রয়েছে কতিপয় হাইব্রিড রাজনৈতিক নেতার ইন্দন। এ ব্যাপারে এলাকাবাসী স্থানীয় আইন-শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর হস্তক্ষেপ কামনা করছেন।

(288)

LaksamDotKom
By LaksamDotKom অক্টোবর ২৬, ২০১৩ ২৩:৫২
Write a comment

No Comments

No Comments Yet!

Let me tell You a sad story ! There are no comments yet, but You can be first one to comment this article.

Write a comment
View comments

Write a comment

Leave a Reply