দানবীর মিজানুর রহমান অসুস্থ স্কুল ছাত্রীকে দিলেন ২০ লাখ টাকা : রোহিঙ্গা মুসলমানদের দিচ্ছেন কোটি টাকার ত্রাণ

LaksamDotKom
By LaksamDotKom অক্টোবর ১৭, ২০১৭ ০৫:১১

দানবীর মিজানুর রহমান অসুস্থ স্কুল ছাত্রীকে দিলেন ২০ লাখ টাকা : রোহিঙ্গা মুসলমানদের দিচ্ছেন কোটি টাকার ত্রাণ

ফারুক আল শারাহ: বিশাল হৃদয়ের মহান পুরুষ দানবীর হাজী মুহাম্মদ মহসিনের নাম কে না শুনেছে? নিঃস্বার্থ সমাজ সেবা ও দানশীলতার কারণে তিনি আজও ইতিহাসের কিংবদন্তি। প্রায় তিনশত বছর পরও এখনো তাঁর উদারতার কথা শুনা যায়। একজন ধার্মিক এবং সহজ-সরল জীবনের অধিকারী মহসিন নিজের সকল সম্পদ মানবতার কল্যাণে ব্যয় করে ইতিহাসে অমর হয়ে আছেন। সমাজের অধিকাংশ সম্পদশালী ব্যক্তি হাজী মুহাম্মদ মহসিনের জীবন থেকে শিক্ষা গ্রহণ করেন না বলেই তারা মানুষের কল্যাণে ভূমিকা রাখতে পারেন না। কিন্তু কিছু ব্যতিক্রম ব্যক্তি আছেন যারা হাজী মুহাম্মদ মহসিনদের মতো বিখ্যাত মনীষিদের আলোয় আলোকিত হন। তারা পরের কল্যাণে নিজের অর্থ-সম্পদ বিসর্জন দিয়ে আনন্দ পান। তেমনি এক মহৎপ্রাণ, মনোহরগঞ্জের কৃতি সন্তান, সৌদি আরব প্রবাসী, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মোঃ মিজানুর রহমান সুমন।
মিজানুর রহমান নিজের প্রমাণ করে দিয়েছেন সমাজ ও মানবতার কল্যাণে তিনি কতটুকু নিবেদিত? তাঁর উদারতার কথা আজ শুধু লাকসাম, মনোহরগঞ্জ কিংবা কুমিল্লা নয়, দেশ-বিদেশেও ছড়িয়ে পড়েছে। তাকে কেউ কেউ বলতে শুরু করেছেন বর্তমান সময়ের আলোচিত হাজী মুহাম্মদ মহসিন, আবার কেউবা বলেন হাতেম তাই। কর্মই মানুষকে মহান করে তুলে। মিজানুর রহমান সুমনও তাঁর কর্মের মাধ্যমে মহান ব্যক্তিত্বের অধিকারী হয়েছেন।

রাষ্ট্রীয় অনুদান ছাড়া ২০/৩০ লাখ টাকা ব্যক্তিগত অনুদান দিয়ে কিডনি অকেজো কিংবা ক্যান্সার আক্রান্ত রোগীকে কোন হৃদয়বান লোক বাঁচাতে এগিয়ে আসার তেমন সংবাদ পাওয়া যায়না। মাঝে মধ্যে অসুস্থ কোন রোগীর চিকিৎসার জন্য কোন মহৎ হৃদয়ের অধিকারী অনুদান প্রদান করলেও অনেক তদ্বির প্রয়োজন হয়। কিন্তু এক্ষেত্রে সম্পূর্ণ উদার মানসিকতার পরিচয় দিয়েছেন মিজানুর রহমান সুমন। কোন প্রকার তদ্বির ছাড়াই তিনি লাকসামের স্কুল ছাত্রী সাফা’র চিকিৎসার পুরো ব্যয়ভার তথা ২০ লাখ টাকা অনুদান ঘোষণা দিয়ে ব্যাপক সাড়া ফেলেন। বিষয়টি দেশ-বিদেশে আলোচিত হয়ে উঠে। মিজানুর রহমান সুমনের এমন ঘোষণায় খোদ সাফা’র পরিবারও চিন্তিত ছিলেন যে- বাস্তবেই কি মিজানুর রহমান সুমন সাফা’র চিকিৎসার জন্য ২০ লাখ টাকা অনুদান দেবেন? এ কারণে সাফা’র পরিবারের পক্ষ থেকে কোন তদ্বিরও করা হয়ন। কিন্তু মিজানুর রহমান সুমনের হৃদয় যে-হাজী মুহাম্মদ মহসিন ও হাতেম তাই এর হৃদয়ের মতো- তা কেইবা জানে! তিনি পারিবারিক ও ব্যবসায়িক অনেক ব্যস্ততার মাঝেও গত ১৩ অক্টোবর সৌদি আরব থেকে বাংলাদেশে ছুটে আসেন। বিমানবন্দরে নেমে বাসায় পৌঁছার পরপরই খোঁজ নেন অসুস্থ সাফা’র। উপস্থিত সকলকেই জানিয়ে দেন পরদিনই তিনি সাফা’র পরিবারের সাথে দেখা করে প্রতিশ্রুত অনুদানের চেক হস্তান্তর করবেন।

যেমন পরিকল্পনা তেমনই কাজ। পরদিন তিনি ছুটে যান অসুস্থ সাফা’র শয্যাপাশে। তিনি সাফা’র পরিবার ও সাফা’র সাথে দীর্ঘসময় কথা বলে চিকিৎসার সর্বশেষ খোঁজ খবর নেন। তিনি বড় ভাইয়ের মতো পরম মমতায় সাফাকে জড়িয়ে ধরেন। এমন মমত্ববোধ হয়তো সাফাকে বুঝিয়ে দিয়েছে- মিজানুর রহমান সুমনদের মতো হাজী মহসিনরা থাকলে সাফাদের বিনা চিকিৎসা মরতে হয়না! মিজানুর রহমান সুমন উপস্থিত সকলের সামনে অসুস্থ সাফা’র হাতেই অনুদানের ২০ লাখ টাকা চেক হস্তান্তর করেন। এ এক আবেগঘন পরিবেশ! কিছু বলার ভাষা হারিয়ে ফেলেছে সাফা। শুধু সাফা নয়, আবেগাপ্লুত তার মাও।
মিজানুর রহমান সুমন থেকে চেক পাওয়ার কথা মুহুর্তের মধ্যে মোবাইলে জানতে পারেন সাফা’র পিতা সফিকুর রহমান। তিনি তাৎক্ষনিক সময়ের দর্পণকে ফোন করে কেঁদে উঠে বলেন- বাংলাদেশের সতের কোটি মানুষের মধ্যে মিজানুর রহমান সুমন একজনই। যিনি তার উদারতার মাধ্যমে আমার মেয়েকে মৃত্যুর দুয়ার থেকে বেঁচে থাকার আশার আলো দেখিয়েছিন। আজ উনার দরদী হৃদয়ের কথা জানতে পেরে সাথে সাথেই দুই রাকআত নফল নামাজ আদায় করে মানবতার দূত মিজানুর রহমান সুমনের জন্য দু’হাত তুলে ধরে মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিন এর নিকট দোয়া করেছি। তিনি বলেন- আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছি মিজানুর রহমান সুমনের জন্য গরু জবাই করে জেয়াফত অনুষ্ঠানের আয়োজন করে সুবিধা বঞ্চিত মানুষ সহ বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষদের একবেলা খাওয়াব। দেশ-বিদেশের সবাই মিজানুর রহমান সুমনের জন্য প্রাণখুলে দোয়া করবেন।

লাকসামের অসুস্থ স্কুল ছাত্রী সাফা’র অনুদানের চেক হস্তান্তরের দিনই মিজানুর রহমান সুমন কক্সবাজারের বিমানের টিকেট চূড়ান্ত করেন। এবার লক্ষ্য তিনি মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর নির্মম নির্যাতনের শিকার-সব হারানো রোহিঙ্গা মুসলমানদের পাশে দাঁড়াবেন। এরই লক্ষ্যে তিনি গতকাল ১৪ অক্টোবর ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মোহাম্মদপুর এলাকার জনপ্রিয় কাউন্সিলর তারেকুজ্জামান রাজীব সহ বেশ কয়েকজন সফরসঙ্গী নিয়ে বিশেষ বিমানযোগে কক্সবাজারে নেমে উখিয়ায় রোহিঙ্গা ক্যাম্পে গিয়ে অসহায় রোহিঙ্গাদের পাশে দাঁড়ান। তিনি সেনাবাহিনীর সহযোগিতায় বিপুল সংখ্যক রোহিঙ্গা মুসলমানদের হাতের ত্রাণ ও নগদ টাকা তুলে দেন। এ সময় অনান্যদেও মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- মিজানুর রহমান সুমনের ছোট ভাই খলিলুর রহমান মামুন, মক্কা মহানগর যুবলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মনির হোসেন শিমুল, ইউপি চেয়ারম্যান ইকবাল হোসেন, কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি আমিরুল ইসলাম, ব্যবসায়ী হারুনুর রশিদ, সাংবাদিক সাইফুল রাজু প্রমূখ। তিনি পর্যায়ক্রমে রোহিঙ্গা মুসলমানদের প্রায় কোটি টাকার ত্রাণ ও নগদ টাকা অনুদান দেবেন বলে জানা গেছে।

মানবিক আহ্বানে সাড়া দিয়ে মিজানুর রহমান সুমন অসুস্থ স্কুল ছাত্রী সাফা’র জীবন বাঁচাতে ২০ লাখ টাকার অনুদান প্রদানের একদিনের মাথায় রোহিঙ্গাদের পাশে দাঁড়ানোর খবর যখন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়ে পড়েছে, ঠিক তখনই মানুষ বলাবলি করছে- মিজানুর রহমান সুমন একজন সত্যিকারের মহৎ মানুষ। তিনি বর্তমান প্রজন্মের হাজী মুহাম্মদ মহসিন। তাঁর উদারতার কথা মানুষের মুখে মুখে। মিজানুর রহমান সুমন এর সুনাম-সুখ্যাতি ছড়িয়ে পড়ছে দেশ-বিদেশে।

মিজানুর রহমান সুমন বলেন- আল্লাহ রাবুল আলামিন আমাকে যতটুকু দিয়েছেন তাতে আমি সন্তুষ্ট। আমি মনে করি আমার অর্জিত সম্পদে হতদরিদ্র মানুষের হক রয়েছে। তাই মানবিক আহ্বানে সাড়া দিয়ে মানুষের পাশে দাঁড়াচ্ছি। তিনি বলেন- দায়িত্ববোধের কারণে আমি সমাজ ও মানব কল্যাণে ভূমিকা রাখতে চাই। সমাজ ও মানব কল্যাণে আমার পথচলায় যারা আমাকে অনুপ্রেরণা যোগাচ্ছেন তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানাচ্ছি। তিনি আরো বলেন- জীবনের প্রতিটি মুহুর্ত আমি অসহায় মানুষের পাশে থাকতে চাই। মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিন যাতে আমার স্বপ্ন-আশা পূরণ করে এ জন্য সকলে আমার জন্য দোয়া করবেন। আল্লাহ রাব্বুল আলামিন সকলকে হেফাজত করুক। আমিন।

(21)

LaksamDotKom
By LaksamDotKom অক্টোবর ১৭, ২০১৭ ০৫:১১
Write a comment

No Comments

No Comments Yet!

Let me tell You a sad story ! There are no comments yet, but You can be first one to comment this article.

Write a comment
View comments

Write a comment

Leave a Reply