একটি ডিঙ্গি নৌকাই শিক্ষার্থীদের একমাত্র ভরসা !

LaksamDotKom
By LaksamDotKom আগস্ট ৫, ২০১৭ ২২:৪৩

একটি ডিঙ্গি নৌকাই শিক্ষার্থীদের একমাত্র ভরসা !

লাকসাম প্রতিনিধি : কুমিল্লার মনোহরগঞ্জে ডাকাতিয়া নদীর উপর একটি ব্রিজের অভাবে দীর্ঘ এক যুগধরে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ছোট্ট ডিঙ্গি নৌকার মাধ্যমে খেয়া পারাপার হচ্ছে স্কুল, মাদ্রাসার কোমলমতি শিক্ষার্থীসহ হাজার হাজার মানুষ। এস্থান দিয়ে আসা যাওয়ার জন্য একটি ডিঙ্গি নৌকাই একমাত্র ভরসা। উপজেলার মৈশাতুয়া ইউনিয়নের হাজীপুরা এবং ঝলম উত্তর ইউনিয়নের বড় কেশতলা সংযোগে একমাত্র মাধ্যম ডাকাতিয়া নদীর ওই খেয়াঘাট দিয়ে দিয়ে প্রতিদিন পারাপারে বাধ্য হচ্ছে ওই এলাকার হাজারো মানুষ। কোমলমতি শতশত শিক্ষার্থীদের নিরাপদে বিদ্যালয়ে যাতায়াতের ব্যবস্থা নিশ্চিতের জন্য লাকসাম-মনোহরগঞ্জর আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য তাজুল ইসলাম এমপির দৃষ্টি আকর্ষণ করে হাজীপুরা বালিকা দাখিল মাদরাসা পরিচালনা পর্ষদের পক্ষ থেকে একটি দরখাস্ত প্রেরণ করেছেন।

জানা যায়, মনোহরগঞ্জ উপজেলা সদর থেকে প্রায় ৫ কিঃ মিঃ উত্তরে মৈশাতুয়া ইউপির হাজীপুরা সফিক চৌধুরীর বাড়ী সংলগ্ন মোড়ে এবং ঝলম উত্তর ইউপির বড়কেশতলায় ডাকাতিয়া নদীর উপর একটি ব্রিজ নির্মাণের দীর্ঘদিনের দাবী এ অঞ্চলের মানুষের। ব্রিজটি নির্মিত হলে বড়কেশতলা উচ্চ বিদ্যালয়, লালচাঁদপুর উচ্চ বিদ্যালয়, লালচাঁদপুর ফাযিল মাদরাসা, হাজীপুরা-সমসেরপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, হাজীপুরা বালিকা দাখিল মাদরাসা, আমতলী উচ্চ বিদ্যালয়, কালিয়াপুর আলিম মাদ্রাসার কোমলমতি শিক্ষার্থীদের জীবনের নিরাপত্তা নিশ্চিত হবে অন্যদিকে পাল্টে যাবে আশে পাশের কয়েকটি গ্রামের শিক্ষার্থী ও কৃষকদের ভাগ্য এবং এ অঞ্চলের মানুষের ব্যবসা-বানিজ্যের প্রসার হবে। সেতু নির্মাণ করার জন্য বিভিন্ন দপ্তরসহ সংশি¬ষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট মৌখিক-লিখিত ভাবে অবহিত করার পরও অদ্যাবধি কর্তৃপক্ষের থেকে কোন সাড়া পাওয়া যায়নি। ঝুঁকিপূর্ন এ খেয়া পারা পারের কারনে শিক্ষার্থীদের নিয়ে প্রতিনিয়তই দুশ্চিন্তা বয়ে বেড়ায় অভিভাবকরা। ওই স্থানে একটি ব্রিজ নির্মাণ করে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের জীবনের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা অত্যাবশ্যক।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় কোমলমতি শিক্ষার্থীদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ছোট্ট ডিঙ্গি নৌকার মাধ্যমে খেয়া পারাপার হচ্ছে। এ সময় হাজীপুরা বালিকা দাখিল মাদরাসার শিক্ষার্থী, তাসলিমা আক্তার, সাজেদা আক্তার, সানজিদা বেগম, আবুল কাশেমসহ বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী জানান তাদের দূঃখ দূর্দশার কথা। অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ন ছোট্ট ডিঙ্গি নৌকার মাধ্যমে খেয়া পারাপার হচ্ছে চলাচল করতে গিয়ে প্রায় তাদের বই-খাতা ও কলম পানিতে পড়ে যায় এবং অনেকেই দূর্ঘটনার শিকার হতে হয়। আবার অনেক সময় নৌকার মাঝি না থাকলে শিক্ষার্থীদের দীর্ঘক্ষন নৌকা ঘাটে মাঝির জন্য অপেক্ষা করতে হয়। এতে আবার অনেক সময় ক্লাসের সময় পার হয়ে যায়।

বড়কেশতলা গ্রামের প্রবাসী সহিদুল ইসলামের স্ত্রী রোকেয়া বেগম বলেন হাজীপুরা মাদরাসার শিক্ষার্থী আমার ৫ম শ্রেনীতে পড়–য়া মেয়ে জান্নাতুল মাওয়া গত প্রথম সাময়িক পরীক্ষায় দিতে গিয়ে ছোট্ট ডিঙ্গি নৌকার মাধ্যমে খেয়া পারাপারের সময় নৌকা ডুবে দূর্ঘটনার কবলে পড়ে মারাত্মক ভাবে আহত হয়। দূর্ঘটনার পর ভয় ও আতংকে আমার মেয়ে ২ বিষয় পরীক্ষা দিতে পারে নাই। হাজীপুরা গ্রামের মোস্তফা কামাল বলেন, বিগত প্রায় ১যুগ থেকে এ ভাবেই প্রতিনিয়ত জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ছোট্ট ডিঙ্গি নৌকার মাধ্যমে নদীর ওপারে যাতায়াত করতে হয়। অনেক সময় ভারী কৃষিপন্য নিয়ে ছোট্ট ডিঙ্গি নৌকার মাধ্যমে খেয়া পারাপার ঝুকিপূর্ন হয়ে উঠে। এই খেয়াঘাট দিয়ে প্রতিদিন এলাকার শত শত শিক্ষার্থী এবং সাধারন মানুষ যাতায়াত করে।

লালচাঁদপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক মোঃ কামাল হোসেন জানান, এ এলাকার মানুষের দীর্ঘদিনের দাবী মৈশাতুয়া ইউপির হাজীপুরায় এবং ঝলম উত্তর ইউপির কেশতলা সংযোগের একমাত্র মাধ্যম ডাকাতিয়া নদীর একটি পাকা ব্রীজ নির্মান করা।

হাজীপুরা বালিকা দাখিল মাদরাসা পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি লায়ন মোঃ হারুন অর রশিদ জানান, এলাকার কোমলমতি শতশত শিক্ষার্থীদের নিরাপদে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যাতায়াতের ব্যবস্থা নিশ্চিতকল্পে হাজীপুরা সফিক চৌধুরীর বাড়ী সংলগ্ন মোড়ে ডাকাতিয়া নদীর উপরএকটি পাকা ব্রীজ জন্য লাকসাম-মনোহরগঞ্জর আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য তাজুল ইসলাম এমপির নিকট আমরা একটি আবেদন প্রেরন করেছি। আমরা আশা করি বিগত দিনে তিনি আমাদের এ এলাকায় এবং প্রতিষ্ঠানে যেভাবে সহযোগীতা করেছেন বাস্তবতার কারনে আগামীতে আরো বেশী করবেন।

(22)

LaksamDotKom
By LaksamDotKom আগস্ট ৫, ২০১৭ ২২:৪৩
Write a comment

No Comments

No Comments Yet!

Let me tell You a sad story ! There are no comments yet, but You can be first one to comment this article.

Write a comment
View comments

Write a comment

Leave a Reply