কুমিল্লা সদর দক্ষিণে আবাসিক গ্যাস সংযোগের গ্রাহককে বানিজ্যিক সাজিয়ে জরিমানার অভিযোগ

LaksamDotKom
By LaksamDotKom ফেব্রুয়ারি ৯, ২০১৭ ০৬:৩৭

কুমিল্লা সদর দক্ষিণে আবাসিক গ্যাস সংযোগের গ্রাহককে বানিজ্যিক সাজিয়ে জরিমানার অভিযোগ

লাকসাম: চাহিদামত ঘুষ না দেয়ায় ও প্রদানকৃত ঘুষের টাকা ফেরত নেয়ায় কুমিল্লা সদর দক্ষিণের এক আবাসিক গ্রাহকের বিরুদ্ধে বানিজ্যিক ব্যবহারের মিথ্যা অভিযোগ দেখিয়ে জরিমানা করেছে বাখরাবাদ গ্যাস ডিষ্ট্রিবিউশন কোম্পানী লিমিটেড’র লাকসাম উপ-এবিকা কর্তৃপক্ষ। এ ঘটনায় লাকসাম অফিসের উপ-সহকারী প্রকৌশলী ফরিদ উদ্দিন, রেকর্ড কিপার ইদ্রিছ ও টেকনিশিয়ান হানিফ মিয়ার বিচার দাবী করে ভুক্তভোগী গ্রাহক শাহ আলম গত সোমবার বাখরাবাদ গ্যাস ডিষ্ট্রিবিউশন কোম্পানীর এমডি বরাবর লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

অভিযোগের বিবরনে জানা যায়, কুমিল্লা সদর দক্ষিণ উপজেলার পেরুল দক্ষিণ ইউনিয়নের গজারিয়া গ্রামের মৃত আবদুল হাকিমের ছেলে মোঃ শাহ আলম বাখরাবাদ গ্যাস কোম্পানীর একজন আবাসিক গ্রাহক (সংকেত নং ৫-ডি-০৩৩৩৩)। বাড়ীর উল্টো পাশে তার একটি চা ও মুদি দোকান রয়েছে। চা তৈরিতে সে গ্যাস সিলিন্ডার ব্যবহার করে। আর্থিকভাবে অস্বচ্ছল হওয়ায় সে নিয়মিতভাবে বাড়ীর আবাসিক গ্যাস বিল পরিশোধ করতে পারেনি। গত ২৯/১২/২০১৬ইং বেলা অনুমান ১১টায় সে দোকান বন্ধ করে দোকানের মালামাল ক্রয়ের জন্য লাকসামে যায়। ওইদিন দুপুর সাড়ে ১২টায় বাড়ীতে এসে সে জানতে পারে বাখরাবাদ লাকসাম অফিসের উপ-সহকারী প্রকৌশলী ফরিদ আহমেদ, রেকর্ড কিপার ইদ্রিছ ও টেকনিশিয়ান হানিফ বকেয়া জনিত কারনে তার আবাসিক গ্যাস সংযোগটি বিচ্ছিন্ন করে। ওই সময় টেকনিশিয়ান হানিফ শাহ আলমের পরিবারকে বলেছিল সে যেন বিকালের মধ্যে হানিফের সাথে দেখা করে। পরে শাহ আলম দেখা করলে হানিফ বলে, আপনার বকেয়া বিল অনেক টাকা জমেছে। তাছাড়া, আপনার বিরুদ্ধে বানিজ্যিক গ্যাস ব্যবহারের অভিযোগও রয়েছে। অভিযোগ প্রমান হলে আপনার অনেক টাকা জরিমানা হতে পারে। তবে আমাদের মাধ্যমে গোপনে শেষ করলে টাকা কম খরচ হবে। আপনি ইদ্রিছের সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করুন।

মুঠোফোনে ইদ্রিছ প্রথমে ৩০ হাজার টাকা ঘুষ দাবী করলেও পরে ১৫ হাজার টাকায় নিয়ে তার সাথে দেখা করতে বলে। পরদিন ৩০শে ডিসেম্বর সকালে ইদ্রিছকে ১৫ হাজার টাকা ঘুষ দেয় শাহ আলম। ইদ্রিছ শাহ আলমকে আলাদাভাবে বকেয়া বিল পরিশোধ করতে বলায় তাদের মধ্যে তর্কবিতর্ক হয়। একপর্যায়ে ইদ্রিছ ঘুষের টাকা ফেরত দেয় এবং শাহ আলমকে সংযোগ নিতে দিবে না বলে হুমকি দেয়। ইদ্রিছ তখন ফেরত দেয়া ঘুষের টাকা দিয়ে বকেয়া বিল পরিশোধ করে এবং পূনঃসংযোগ পেতে আবেদন করে। কিন্তু ইদ্রিছ গংদের ইন্ধনে গ্যাস কোম্পানী কর্তৃপক্ষ শাহ আলমের বিরুদ্ধে বানিজ্যক ব্যবহারের অভিযোগ দেখিয়ে জরিমানা করে। ইতিমধ্যে মিথ্যা অভিযোগের জরিমানা থেকে রক্ষা পেতে সে লাকসাম ও কুমিল্লা অফিসে যোগাযোগ করেও কোন ফল পায়নি। রোববার শাহ আলম পূনঃ গ্যাস সংযোগসহ অভিযুক্ত ৩ জনের বিরুদ্ধে ঘুষের জন্য আবাসিক গ্রাহককে বানিজ্যিক সাজানোর অভিযোগ এনে ঘুষ গ্রহন ও ফেরত নেয়ার ঘটনায় সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে বিচার দাবী করে কোম্পানীর এমডি বরাবর লিখিত আবেদন করেন।

ভুক্তভোগী শাহ আলম বলেন, চাহিদামত ঘুষ না দেয়ায় ও ঘুষের টাকা ফেরত নেয়ায় আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ এনে জরিমানা করিয়েছে। আমি তাদের বিচার চাই। তাছাড়া, ঘুষ লেনদেনের বিষয়ে আমার সাথে ইদ্রিছের যে কথা হয়েছে তা মোবাইলে অডিও রেকর্ড রয়েছে। এ বিষয়ে অভিযুক্ত রেকর্ড কিপার ইদ্রিছ বলেন, আমি বকেয়া বিল বাবদ অফিসের জন্য ১৫ হাজার টাকা চেয়েছি, এটা ঘুষ নয়। গ্রাহক আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচার করছে।

(14)

LaksamDotKom
By LaksamDotKom ফেব্রুয়ারি ৯, ২০১৭ ০৬:৩৭
Write a comment

No Comments

No Comments Yet!

Let me tell You a sad story ! There are no comments yet, but You can be first one to comment this article.

Write a comment
View comments

Write a comment

Leave a Reply